Wednesday , July 6 2022

যার হাতে মুসলিম হন ১ কোটিরও বেশি মানুষ!

কুয়েতে জন্মগ্রহণ করা ডক্টর আব্দুর রহমান আস-সুমাইত বাগদাদ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেডিসিন ও সার্জারিতে বি.এস করেন। অতঃপর উচ্চশিক্ষার জন্য ইংল্যান্ডে যান। ১৯৭৪ সালে লিভারপুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ট্রপিকাল ডিজিজের ওপর ডিপ্লোমা করেন। কানাডার ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয় (McGill University) বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পোস্টগ্রাজুয়েট সম্পন্ন করেন।

মাসে লক্ষাধিক টাকার বেতনে চাকরি করার সুযোগ ছিল তার সামনে। সুযোগ ছিল ফার্স্ট ওয়ার্ল্ডের নাগরিক হবার, মানুষের স্বপ্নের দেশগুলোর যেকোনো একটিতে সম্মানজনক ডাক্তার হিসেবে বসবাস করার। মানুষ বর্তমানে কত চেষ্টা করে IELTS, GRE, GMAT দিয়ে বিদেশ যেতে চায়। স্বপ্নের দেশগুলোতে যেতে চায়। আব্দুর রহমান আস-সুমাইত সেসব দেশে গিয়ে পড়াশোনা করেন।

১৯৭২ সালে তিনি ইংল্যান্ডে পড়াশোনা করেছেন। তখন শুনতে পেলেন তার এক বন্ধু একটি কনফারেন্সে গেল। সেই কনফারেন্সে ইউরোপের খ্রিস্টান নেতৃবৃন্দ একত্রিত হয়েছে ‘আফ্রিকা মিশন’ নামে। তারা পরিকল্পনা করলো আগামী ১৮ বছর তারা আফ্রিকায় মিশনারীর কাজ করবে, পুরো আফ্রিকাকে প্রায় শতভাগ খ্রিস্টান জনসংখ্যায় পরিণত করবে।

আফ্রিকা বর্তমানে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর মধ্যে অন্যতম। আফ্রিকা একসময় ছিল খনিজ সম্পদে ভরপুর। সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রগুলোর অন্যতম আকর্ষণ ছিল এই আফ্রিকা। আফ্রিকায় নিজেদের কলোনি স্থাপন করে তারা সেখানকার রক্ত শুষে খেয়েছে, মানুষকে বানিয়েছে দাস। টান্স-আটলান্টিক দাসপ্রথা যার অন্যতম উদাহরণ। সেই আফ্রিকার অবস্থা জরাজীর্ণ। সেখানকার মানুষ খাদ্যাভাবে, চিকিৎসাভাবে মারা যাচ্ছে। পরিবারগুলো ছেলেমেয়েদেরকে পড়ালেখা করাতে পারছে না।

আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতির শিকার হয়ে কীভাবে মানুষ তার ধর্মত্যাগ করে, সেই প্রেক্ষাপটে কাজী নজরুল ইসলাম লিখেছেন তার বিখ্যাত উপন্যাস ‘মৃত্যুক্ষুধা’। আফ্রিকার মানুষের অবস্থা তেমন। মিশনারীগুলো সেখানকার মানুষদের খাদ্যাভাব দূর করে, বিনিময়ে তাদেরকে খ্রিস্টধর্ম গ্রহণে উদ্বুদ্ধ করে। গিভ অ্যান্ড টেক রিলেশন।

ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইত ইংল্যান্ডে পড়াশোনাকালীন সময়ে মিশনারীদের পরিকল্পনা সম্পর্কে অবহিত ছিলেন। পড়াশোনা শেষে তিনি তার স্ত্রীকে বললেন যে, তিনি চান তার ক্যারিয়ার পূর্ব-এশিয়ায় শুরু করতে। পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো হলো- চীন, হংকং, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, উত্তর কোরিয়া। এসব দেশে ইসলামের প্রচার-প্রসার তেমন নেই। আব্দুর রহমান আস-সুমাইতের ইচ্ছে ছিল সেসব দেশে ডাক্তারি পেশার পাশাপাশি দাওয়াতের কাজ করবেন।

তিনি তার নিজ দেশ কুয়েতে ফিরেন। ঘটনাক্রমে কুয়েতের আমিরের স্ত্রীর সঙ্গে তার দেখা হয়। তিনি চান, আফ্রিকায় তার নামে একটি মসজিদ নির্মাণ করতে; এক্ষেত্রে ডাক্তারের সরাসরি তত্ত্বাবধান কামনা করছেন। ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইত প্রস্তাবে রাজী হন। কুয়েতের আমিরের স্ত্রীর অর্থায়নে একটি মসজিদ নির্মাণে পাড়ি জমান আফ্রিকায়।

মসজিদ নির্মাণ করতে গিয়ে তিনি আফ্রিকার অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। আফ্রিকার মুসলিমদের অবস্থা দেখে তিনি যেন নিজের দু’চোখকে বিশ্বাস করতে পারছেন না! তিনি দেখতে পান:

* অনেক মুসলিম কীভাবে নামাজ পড়তে হয় জানে না, কীভাবে ওজু করতে হয় জানে না।

* তারা নামে মুসলিম, কিন্তু তারা সূর্যের উপাসনা, তারকার উপাসনা করে!

* মসজিদের ইমাম মসজিদের মধ্যে যেনায় লিপ্ত!

* চারিদিকে শিরক বিদআতের ছড়াছড়ি।

* আফ্রিকার মুসলিমরা অর্থাভাবে আছে। সেই দুর্বলতায় খ্রিস্টান মিশনারি আর্থিক সহযোগিতা প্রদান করে তাদেরকে খ্রিস্টান বানাচ্ছে।

* আফ্রিকার মুসলিমরা পড়ালেখায় অনেক পিছিয়ে। ফলে, আফ্রিকার নীতিনির্ধারক যারা হচ্ছে, যারা ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, এমপি-মন্ত্রী হচ্ছে, তাদের বেশিরভাগই খ্রিস্টান। মুসলিমরা আর্থিকভাবে যেমন পিছিয়ে পড়ছে, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয়ভাবেও তেমন পিছিয়ে পড়ছে।

এমন পরিস্থিতিতে আফ্রিকার মুসলিমদের অবস্থা চরম শোচনীয়! আফ্রিকার মুসলিমরা ইসলাম ত্যাগের দ্বারপ্রান্তে।

আব্দুর রহমান আস-সুমাইত আফ্রিকায় গিয়েছিলেন কয়েক মাসের সফরে। কিন্তু, আফ্রিকার এমন অবস্থা দেখে তিনি চিন্তায় পড়ে গেলেন। কেয়ামতের দিন যদি তাকে জিজ্ঞেস করা হয়, মুসলিমদের এমন শোচনীয় অবস্থা দেখে তিনি কেন পালিয়ে গেলেন? তিনি কেন বেটার লাইফস্টাইলের আশায় মানুষকে ঈমানহারা হতে দেখেও চলে যান উন্নত দেশে? এসব চিন্তা তার মাথায় ঝেঁকে বসে।

তিনি স্ত্রীর সঙ্গে পরামর্শ করেন- ‘আমাদের তো যাবার কথা ছিল পূর্ব-এশিয়ায়, এই অবস্থায় আমরা কী করব?’

তার স্ত্রী জবাব দেন: ‘এটা হয়তো আল্লাহরই পরিকল্পনা। মসজিদ প্রতিষ্ঠার জন্য আমাদেরকে আফ্রিকায় নিয়ে এসেছেন, যাতে আমরা আফ্রিকার অবস্থা দেখতে পারি। আপনি চিন্তা করবেন না, আমি চাই না বিলাসী জীবন। আমি আফ্রিকায়ই থাকতে চাই।’

এই বলে উম্মে সুহাইব (আব্দুর রহমানের স্ত্রী) নিজের স্বর্ণালঙ্কার স্বামীকে দিয়ে বলেন, ‘এগুলো দিয়ে দাওয়াতের কাজ শুরু করেন। জান্নাতে গেলে আমি এমনিতেই স্বর্ণালঙ্কার পাব। দুনিয়ার স্বর্ণালঙ্কার আমি জান্নাতের জন্য বিনিয়োগ করলাম।’

একটি মসজিদ স্থাপনের জন্য আসা ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইত তার ঈর্ষণীয় ক্যারিয়ারকে পেছনে ফেলে বসবাস শুরু করলেন আফ্রিকায়। আফ্রিকার মানুষের কল্যাণে প্রতিষ্ঠা করেন ‘African Muslim Agency’। বৈদেশিক ত্রাণ আফ্রিকার অভাবী মানুষের হাতেনাতে পৌঁছে দেবার জন্য গঠন করেন আরো কয়েকটি সংগঠন।

আফ্রিকার এক দেশ থেকে আরেক দেশে, এক গ্রাম থেকে আরেক গ্রামে পায়ে হেঁটে, সাঁতার কেটে, গাড়িতে চড়ে দাওয়াতের জন্য সফর করেন। এমনও দিন অতিবাহিত হয়েছে, যখন তার খাওয়ার জন্য পানি ছাড়া কিছুই ছিল না। মানুষের মলমূত্র ফেলা হয়, এরকম পুকুর থেকে খাবার পানি সংগ্রহ করে খেতে হয়েছে মাঝেমধ্যে। বেশ কয়েকবার তাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়। দুইবার তিনি জেলেবন্দি হন। তবুও তিনি দমে যাননি।

একবার একটি গ্রামে প্রবেশ করতে চাইলেন। সেখানকার অধিবাসীরা ছিল খ্রিস্টান। দাওয়াতের জন্য সেই গ্রামে তাকে ঢুকতে দেয়া হবে না। তারা শর্ত দিল- আপনি আল্লাহর কাছে দোয়া করুন, আল্লাহ যেন আমাদের গ্রামে বৃষ্টি দেন। এই গ্রামে গত ৩-৪ বছর ধরে বৃষ্টি হয় না। আপনার দোয়ায় যদি বৃষ্টি হয়, তবেই আমরা ইসলাম গ্রহণ করব। নতুবা আপনার এই ইসলামের কোনো দরকার নেই। আপনি ভাগেন।

ডাক্তার আব্দুর রহমান বললেন, ‘এটা তো আমার নিয়ন্ত্রণে নেই। আমি দোয়া করলেই আল্লাহ বৃষ্টি দিবেন, এমন কোনো নিশ্চয়তা তো আমি দিতে পারি না।’

লোকজন তাকে জোরাজুরি করলো। একবার দোয়া করেই দেখেন। যদি আপনার দোয়ায় কাজ হয়, তাহলে তো আমরা ইসলাম গ্রহণ করব। তিনি তার সঙ্গীদের মুখ চাওয়াচাওয়ি করলেন। তারাও পরামর্শ দিল, আপনি একবার দোয়া করেন।

আব্দুর রহমান আস-সুমাইত হাত তুললেন। তিনি বলেন: ‘আমি হাত তুলে দোয়া করতে লাগলাম। আমার মনের আকুতি মিশিয়ে আল্লাহর কাছে যতটা নত হওয়া যায়, কান্না করতে লাগলাম। আমার মনে হলো আমার সমস্ত চোখের পানি ছেড়ে দেই! আমি কাঁদতেই থাকলাম, কাঁদতেই থাকলাম। আমি আল্লাহর কাছে ফরিয়াদ করলাম- ‘হে আল্লাহ! আমার পাপের জন্য আপনি আপনার বান্দাদের এমন সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া হতে দিয়েন না। আমার পাপ যেন তাদের ইসলাম গ্রহণে বাধা হয়ে না দাঁড়ায়। হে আল্লাহ, আপনি বৃষ্টিবর্ষণ করুন।’

আমি দোয়া করতে করতে আকাশের দিকে তাকালাম। অবাক হয়ে লক্ষ করলাম আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হতে শুরু করেছে, মেঘের গর্জন শোনা যাচ্ছে। অতঃপর ঝুম বৃষ্টি শুরু হলো। এমন বৃষ্টি হলো, আফ্রিকার মানুষ তাদের জীবনে এভাবে মুষলধারে বৃষ্টি দেখেনি। গ্রামবাসী তাদের কথা রাখলো। পুরো গ্রাম ইসলাম গ্রহণ করলো।’

আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইতের উদ্যোগে এমনসব কাজ হয়, যেগুলো রাষ্ট্রীয় উদ্যোগেও হবার চিন্তা করা দুঃসাধ্য। পুরো আফ্রিকাজুড়ে ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইত যা করেন:

* ৯৫০০টি এতিমখানা স্থাপন করেন।

* ৯৫,০০০ শিক্ষার্থীর পড়ালেখার জন্য বৃত্তি প্রদান করেন।

* ৫,৭০০টি মসজিদ স্থাপন করেন।

* নারীদের জন্য ২০০টি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপন করেন।

* ৮৬০টি স্কুল স্থাপন করেন।

* ১০২টি ইসলামিক সেন্টার স্থাপন করেন।

* তানজেনিয়া, জানজিবার, কেনিয়ায় ৪টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করেন।

* পানি সঙ্কট নিরসনে ৯৫০০টি কূপ খনন করেন।

* ৫ কোটি ১০ লক্ষ কোরআন বিতরণ করেন।

ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইতের সঙ্গীদের তথ্যমতে, তার কল্যাণে আফ্রিকার ১১ মিলিয়ন তথা ১ কোটি ১০ লাখের বেশি মানুষ ইসলাম গ্রহণ করে।

আফ্রিকায় এক কুটির ঘরে রাতের বেলা। আব্দুর রহমান বসে আছেন স্ত্রীর পাশে। উম্মে সুহাইবকে বেশ ক্লান্ত মনে হচ্ছে। সারাদিনের পরিশ্রম শেষে শরীর জুড়ে অবসাদের ছাপ। আব্দুর রহমান আস-সুমাইত জিজ্ঞেস করলেন, ‘ও উম্মে সুহাইব, তোমাকে তো বেশ ক্লান্ত দেখাচ্ছে? তোমার কষ্ট হচ্ছে? তুমি কি হাল ছেড়ে দিয়েছো?’

উম্মে সুহাইব হাসলেন। তিনি ভাবছেন কী আর তার স্বামী জিজ্ঞেস করছেন কী? তিনি বললেন,

‘ও আবু সুহাইব! আমি এখন কী ভাবছি জানো?’

‘তুমি না বললে জানব কীভাবে!?’

‘আমি ভাবছি, আল্লাহ যদি আমাকে জান্নাত দান করেন, আমি আজ যতটা খুশি আছি, জান্নাত লাভের পর কি তারচেয়েও বেশি খুশি হবো?’

স্বামী-স্ত্রী নিজেদের পুরো জীবন এমনভাবে দ্বীনের খেদমতে কাজে লাগাত, দুনিয়ায় থাকাবস্থায় তারা জান্নাতের স্বাদ পাচ্ছেন! তারা ভেবে পাচ্ছেন না, তারা এত সুখে আছেন, জান্নাত পেলে কি তারচেয়েও বেশি খুশি হবেন!

আব্দুর রহমান আস-সুমাইত শুধুমাত্র মুখে মুখে দাওয়াত দেননি। তিনি মানুষের অভাব বুঝতে পারেন, মানুষের চাহিদা বুঝতে পারেন। সেই অনুযায়ী নেমে যান দাওয়াতে। মানুষের খ্যাদ্যাভাব দূর করার জন্য উদ্যোগ নেন, চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন, শিক্ষার সুযোগ তৈরি করেন। আফ্রিকার পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যেন ভবিষ্যতে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারে, ভবিষ্যতে যাতে তারা জাতির কর্ণধার হতে পারে, সেজন্য স্থাপন করেন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়। ধর্মীয় অজ্ঞতা দূর করার জন্য স্থাপন করেন মসজিদ, মক্তব, মাদ্রাসা। নিজের জীবনটা কাটিয়ে দেন আফ্রিকায়। নিজের মেয়ের বিয়ের সময় এমন একজন পাত্রের হাতে মেয়েকে তুলে দেন, যে স্ত্রীসহ আফ্রিকায় বসবাস করতে ইচ্ছুক। আফ্রিকার মুসলিমদের দুর্দশা দূরীকরণে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য রেখে যান তার নিজের পরিবার।

এত কিছু করতে গিয়ে নিজের শরীরের দিকে খেয়াল করার সময় তার ছিল না। আস্তে আস্তে তার স্বাস্থ্যের অবনতি হয়। তখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে চিকিৎসার জন্য যান। ১৫ আগস্ট ২০১৩। ৬৬ বছর বয়সে ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইত শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। রাহিমাহুল্লাহ।

সুযোগ থাকা সত্ত্বেও উন্নত জীবনযাপনের আশায় তিনি স্রোতের অনুকূলে হাঁটেননি। পুরো জীবনটা বিলিয়ে দেন আল্লাহর রাস্তায়। ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইতের পুরো জীবনের গল্প পড়ে মনে পড়ে কোরআনের একটি আয়াত। আল্লাহ বলেন: ‘মানুষের মধ্যে এমন লোকও আছে, যারা আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে নিজেকে বিলিয়ে দেয়। আর আল্লাহ তার বান্দাদের প্রতি স্নেহশীল।’ (সুরা বাকারা: ২০৭)

ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইতের ইন্তেকালের পরের ঘটনা। কুয়েতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের নিয়ে একটি কনফারেন্স হয়। সেই কনফারেন্সে অংশগ্রহণ করেন পূর্ব-আফ্রিকার দেশ মালাউই এর পররাষ্ট্রমন্ত্রী। কনফারেন্স শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জিজ্ঞেস করেন, ‘আব্দুর রহমান আস-সুমাইতের কবর কোথায়?’ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে কবর দেখানো হলে তিনি জিয়ারত করেন। একজন কৌতুহল দমিয়ে রাখতে না পেরে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আপনি একটি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। আপনি কেন এই দেশের একজন সাধারণ ডাক্তারের খোঁজ নিয়ে তার কবর জিয়ারতে যাচ্ছেন?’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী জবাব দিলেন: ‘আমি ছিলাম একজন এতিম বালক। ডাক্তার আব্দুর রহমান আস-সুমাইত আমার পড়ালেখার ব্যবস্থা করেন। সেদিন যদি তিনি আমাকে টেনে নিয়ে স্কুলে ভর্তি না করতেন, তাহলে আজকে আমি এখানে আসতে পারতাম না!’

Check Also

নিজের স্ত্রী ব্যাগে কলম খুঁজতে গিয়ে স্বামী এমন জিনিস দেখতে পেল যেটি দেখে তাঁর হুঁশ উড়ে গেল

একটি সম্পর্কের সবচেয়ে বড় ব্যাপার হল বিশ্বাস। বিশ্বাস না থাকলে কোন সম্পর্ক ভালো জায়গায় থাকতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.