Wednesday , January 19 2022

নির্যাতনে মৃত্যু আরও এক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর…

চট্টগ্রামে যৌতুকের জন্য স্বামীর নির্যাতনে মাহমুদা খানম ওরফে আঁখি (২১) নামে এক বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক ছাত্রীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর স্বামী আনিসুল ইসলামকে (৩২) গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বিকালে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সরোয়ার জাহানের আদালত শুনানি শেষে এই আদেশ দেন। চট্টগ্রাম মহানগর আদালতের জিআরও (এসআই) মো. ইউসুফ ভুইয়া এ তথ্য নিশ্চিত বরেছেন। আনিসুল চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য। তিনি বাঁশখালী থানার উত্তর জলদী পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে।

জানা গেছে, আঁখির মৃত্যুর ঘটনায় বড় ভাই মো. নিজাম উদ্দিন বাদী হয়ে গত রবিবার রাতে চান্দগাঁও থানায় মামলা করেছেন। এতে আঁখির স্বামী আনিসুল ইসলাম (৩২), শাশুড়ি ফরিদা বেগম (৫০) ও ননদ হামিদা বেগমকে (৩৪) আসামি করা হয়েছে। মামলায় অভিযোগ করা হয়, ১৩ ডিসেম্বর রাত ১০টার দিকে আসামিরা যৌতুকের দাবিতে আঁখিকে মারধর করে পেটে আঘাত করলে তাঁর খাদ্যনালি ছিঁড়ে যায়। মারাত্মক আহত অবস্থায় তাঁকে নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছয় দিন পর গত রবিবার সন্ধ্যায় মারা যান আঁখি।

জানা গেছে, আঁখির গ্রামের বাড়ি বাঁশখালী উপজেলার উত্তর জলদী গ্রামের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে। তাঁর বাবার নাম মফিজুর রহমান। বর্তমানে তাঁর মা-বাবা ও পরিবারের অন্য সদস্যরা নগরীর বাকলিয়া থানাধীন সৈয়দ শাহ রোডের ল্যান্ডমার্ক হাউজিংয়ে বসবাস করেন। আনিসুলের গ্রামের বাড়িও বাঁশখালী উপজেলার উত্তর জলদী গ্রামে। তাঁর বাবার নাম সিরাজুল ইসলাম। বর্তমানে তাঁরা নগরের চান্দগাঁও থানার পাঠানিয়া গোদা শওকত আবাসিক এলাকায় থাকেন।

চাঁদগাঁও থানার ওসি মইনুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, আসামি আনিসুলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাকে আদালতে হাজির করে রিমান্ডের আবেদন করা হবে। তিনি বলেন, চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, মাহমুদার খাদ্যনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যার কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। নির্যাতনের কারণে এমনটি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। মাহমুদার মৃত্যুর ঘটনায় রোববার রাত ৯টার দিকে নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালের সামনে থেকে আনিসুলকে গ্রেফতার করে পাঁচলাইশ থানা পুলিশ।

মামলার বাদী নিজামের অভিযোগ, যৌতুকের জন্য স্বামী আনিসুলের নির্যাতনে মাহমুদা নিহত হয়েছে। ওসি মইনুর রহমান বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য মাহমুদার লাশ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে। দুপুরে ময়নাতদন্ত হওয়ার কথা রয়েছে।তিনি আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া গেছে, নির্যাতনে খাদ্যনালি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে মাহমুদার মৃত্যু হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার মৃত্যুর কারণ আরও স্পষ্ট হবে। এ ঘটনায় আসামি আনিসুলকে আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে রিমান্ডের আবেদন করা হবে বলে জানান তিনি।

পাঠকের মন্তব্য:

Check Also

ডাক্তারের পরিবর্তে সিজার করলো নার্স-আয়া, কপাল কাটলেন নবজাতকের।

ফরিদপুরে প্রসব করাতে গিয়ে নবজাতকের কপাল কেটে ফেলেছে নার্স ও আয়া। শনিবার ( ১৫ জানুয়ারি) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *