Wednesday , January 19 2022

মা-মেয়ে মিলে ব্যবহারই করে গেলা, এইচএসসি পরীক্ষার্থীর সুইসাইড নোটে

প্রেমিকার সঙ্গে অভিমান করে পাবনার চাটমোহরে ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে শুভ দাস (১৮) নামে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে। মৃত্যুর ঘণ্টাখানেক আগে ওই তরুণ নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে বেশ কয়েকটি ছবি ও হিন্দি সিনেমার আংশিক ভিডিও পোস্ট দেন। সর্বশেষ সে তার প্রোফাইল পিকচার ‘দ্য এন্ড’ ক্যাপশন লিখে পরিবর্তন করেন। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় পাবনার চাটমোহর পৌর শহরের কালীসাগরপাড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শুভ দাস ওই এলাকার সুব্রত দাসের ছেলে। চলতি বছর চাটমোহর সরকারি কলেজ থেকে শুভর এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। শুভর মৃত্যুর পর ১০ পাতার সুইসাইড নোট উদ্ধার করা হয়েছে। যেখানে প্রেমিকা ও তার মায়ের বিরুদ্ধে বিস্তর প্রতারণার অভিযোগ লিখে গেছেন তিনি। মেয়েটি তার সাথে প্রেমের অভিনয় করে বারবার ঠকিয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

সুইসাইড নোটের প্রথমে প্রেমিকার নাম উল্লেখ করে লেখা হয়েছে, তুমি আমার সাথে এরকম করলা কেনো। আমি তো তোমাকে ঠকাই নাই। তুমি যা বলতা, আমি তাই শুনতাম, কোনো মেয়ের সাথে কথাও বলতাম না। তুমি মানা করতা, সিগারেট খেতাম না। কোনো নেশা পানি করতাম না। তাইলে সবাইকে তুমি মিথ্যা কেন বলছো যে, আমি ভাল না, নেশাখোর। তুমি যা চাইতা তাই দিতাম। ৪-৫ বছর আমাকে ব্যবহার করে গেলা।

সুইসাইড নোটের বিভিন্ন জায়গায় তার প্রেমিকা অন্য কয়েকটি ছেলের সাথে প্রেম করতো উল্লেখ করে তার সাথে রাগ-অভিমানের কথা জানানো হয়েছে। গেমস খেলার জন্য প্রেমিকাকে ৩০ হাজার টাকা মোবাইল কিনে দিয়েছেন শুভ। চিঠিতে শুভ দাসের আক্ষেপ ঝরেছে, প্রেমের নামে তাকে বারবার ঠকিয়েছে প্রেমিকা। অনেক রাত তারা একসাথে কাটিয়েছে। প্রেমিকার মা সব জানতো। তাকে দিয়ে বাড়ির সব কাজে ব্যবহার করাতো।

সুইসাইড নোটের আরেকটি পাতায় লেখা রয়েছে, তোমাকে আমি মরার কথা বললে তুমি বলেতে মরো, মরলে নাকি তোমার ভাল। তাই মরে তোমার ভাল করে দিয়ে গেলাম। আর সব সত্যি কথা বলে গেলাম। মিথ্যা কথা একটাও বলি নাই। শেষের পাতায় শুভ লিখেছেন, তোমাকে সত্যি পাগলের মতো ভালবাসতাম। তুমি দাম দিলা না। শুধু ব্যবহারই করে গেলা মা-মেয়ে মিলে। তুমি ও তোমার মা দায়ী আমার মৃত্যুর জন্য।

এ বিষয়ে চাটমোহর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, শুভ দাসের মৃত্যুর ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের হয়েছে। ১০ পাতার সুইসাইড নোট জব্দ করা হয়েছে। সেগুলো যাচাই বাছাই করে দেখা হচ্ছে। পরিবারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাঠকের মন্তব্য:

Check Also

ডাক্তারের পরিবর্তে সিজার করলো নার্স-আয়া, কপাল কাটলেন নবজাতকের।

ফরিদপুরে প্রসব করাতে গিয়ে নবজাতকের কপাল কেটে ফেলেছে নার্স ও আয়া। শনিবার ( ১৫ জানুয়ারি) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *