Tuesday , September 21 2021

কাবুলের আকাশ থেকে ছাদে আছড়ে পড়েছিল দুই দেহ, দেখে জ্ঞান হারান বাড়ির মালিকের স্ত্রী।

আফগানিস্তানের কাবুলে প্লেন থেকে খসে পড়তে দেখা গিয়েছিল দুই আফগানকে। তাঁরা কোথায় গিয়ে পড়েছিলেন, তার উত্তর পাওয়া গেল। কাবুল বিমানবন্দর থেকে ১১ কিলোমিটার দূরে একটি বাড়ির ছাদে আছড়ে পড়ে দু’টি দেহ। এতটাই শব্দ হয়েছিল তার যে প্রতিবেশীরা ভেবেছিলেন বিস্ফোরণ হয়েছে হয়তো।

‘ভুল’ ভাঙে বাড়ির মালিক ছাদে যাওয়ার পর। দেখা যায় ছাদে পড়ে রয়েছে র”ক্তাক্ত দুটি দেহ। দু’জনেরই বয়স কম। তবে তাঁদের মাথার খুলি ফেটে গিয়েছিল। পেট ফেটে বেরিয়ে এসেছিল নাড়িভুঁড়ি। খবর- এনডিটিভি ও আনন্দবাজার।

বিমানবন্দরের নিকটেই ওই জয়গাটির নাম খ্যায়ের খানা। সেখানেই দোতলা বাড়ি বেসরকারি সংস্থার নিরাপত্তাকর্মী ওয়ালি সালেকের। সোমবার দুপুরে যখন ঘটনাটি ঘটে তখন সালেক বাড়িতে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন । তাঁর দুই কন্যা ছিলেন রান্নাঘরে। ঘুমোচ্ছিলেন দুই ছেলে। প্রবল শব্দে চমকে ওঠেন প্রত্যেকে। সালেক বলেছেন, ‘বাড়ির দেওয়াল থেকে পলেস্তারা খসে পড়ছিল। আওয়াজ শুনে দৌড়ে ছাদে যাই।

সেখানেই দেখি ওই দৃশ্য।’ সালেকের স্ত্রী জাকিয়া সালেকও এসেছিলেন স্বামীর পিছনে। প্রায় বিকৃত হয়ে যাওয়া দেহ দু’টি দেখে অসুস্থ হয়ে পড়েন জাকিয়া। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই জ্ঞানও হারান তিনি। সালেক বলেছেন, ‘গোটা ছাদে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়েছিল রক্ত আর শরীরের অঙ্গ প্রত্যঙ্গ। ওই দৃশ্য দেখা যাচ্ছিল না।’

ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমকে ভিডিও কলে বাড়ির ছবি দেখিয়েছেন সালেক। পাঠিয়েছেন মৃতদেহ দু’টির ছবিও। তবে অন্য একটি সংবাদ সংস্থার তরফে দাবি করা হয়েছে, মৃ”ত দুই আফগান আসলে দুই সহোদর। তাঁদের নাম কবীর এবং রেজা। তাঁদের পরিবার রেজার দেহ খুঁজে পেলেও কবীরের দেহ পায়নি। যদিও ভারতীয় সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সালেকের সাক্ষাৎকার অনুযায়ী দু’জনেরই দেহ নিয়ে গিয়েছে তাদের পরিবার।

সালেক জানিয়েছেন, মৃত দুই যুবকের এক জনের বয়স ২৫। নাম শাফিউল্লা হোতাক। অন্যজন ২০ বছরের। নাম ফিদা মোহাম্মদ। বাড়ি কাবুলের কাছে পাঘমানে। তাঁদের পোশাক পরীক্ষা করে পরিচয়পত্র পেয়েছিলেন সালেক। তাতে লেখা ছিল ঠিকানাও। তা দেখেই দু’জনের বাড়িতে খবর দেন সালেক।

চাদরে দেহ মুড়ে বাড়ি থেকে ৩০০ মিটার দূরে একটি মসজিদে রেখে এসেছিলেন সালেক। সঙ্গে ছিলেন ১০ -১২জন প্রতিবেশীও। সেখান থেকেই তাঁদের দেহ নিয়ে যান দুই যুবকের পরিবার। সালেক অবশ্য প্রথমে ভেবেছিলেন ওই দুই যুবক তালেবান। প্লেন থেকে মেরে হয়তো ফেলে দেওয়া হয়েছে তাঁদের। পরে তার সেই ভুল ভেঙেছে পরিচয়পত্র দেখে।

বাড়ি থেকে ৯ কিলোমিটার দূরে কাবুলে সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করেন সালেক। সোমবার সন্ধে ৬টা থেকে শিফট ছিল তাঁর। রাতে বাড়ি ফিরে জানতে পারেন মসজিদ থেকেই দুই আফগান ভাইয়ের দেহ নিয়ে গিয়েছে তাঁদের পরিবার। তবে সোমবারের ঘটনা যে কোনও দিন ভুলতে পারবেন না তা সাক্ষাৎকারে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন সালেক।

বলেছেন, ‘বিমানবন্দরের কাছে বাড়ি। মাঝেমধ্যেই অদ্ভুত শব্দ শুনতে পাই। অনেকবার ভেবেছি প্লেন থেকে যদি কেউ ডলার ভর্তি ব্যাগ ফেলে দেয়, কী ভাল হয়। কিন্তু তার বদলে এসে পড়ল দেহ।’

পাঠকের মন্তব্য:

Check Also

ভিক্ষুকের বিলাসী জীবন, রয়েছে কোটি টাকার দুটি অ্যাপার্টমেন্ট!

ভিক্ষুকের বিলাসী জীবন, রয়েছে কোটি টাকার দুটি অ্যাপার্টমেন্ট!

ভারতে এক ভিক্ষুকের মাসিক আয় ও সম্পত্তির পরিমাণ শুনলে চোখ কপালে উঠবে। ভরত জৈন (৫০) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *